বর্তমানে পঞ্চগড়, ঠাকুরগাঁও, লালমনিরহাট, নীলফামারী ও দিনাজপুর জেলার ১০টি নিবন্ধিত ও ১৭টি অনিবন্ধিত চা বাগান এবং ৭,৩১০টি ক্ষুদ্রায়তন চা বাগানে মোট ১০,১৭০ একর জমিতে চা চাষ হচ্ছে। বিগত বছরে এ অঞ্চল থকে ১০.৩০ মিলিয়ন কেজি (দেশের ১১.৯২ শতাংশ) চা উৎপাদিত হয়েছে। শুরুতে এ অঞ্চলের বেশীরভাগ ক্ষুদ্র চা চাষিগণ চা চাষে অনভিজ্ঞ ছিল। তাই অনভিজ্ঞতা ও অদক্ষতার কারণে তাঁরা তাঁদের ইচ্ছামতো চারা রোপন, পাতা চয়ন, প্রুনিং, সার প্রয়োগ ও পোকামাকড় দমন করে থাকতো। ফলশ্রুতিতে প্রায়শই তাঁদের চা বাগানে ভুল প্র্যাকটিস অনুসরণ করতে দেখা যায়। উল্লেখ্য উত্তরাঞ্চলের ক্ষুদ্রায়তন চা চাষিদের বিগত দিনগুলোতে বাংলাদেশ চা বোর্ডের পঞ্চগড় কার্যালয় থেকে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা জারী ছিল। তবে বর্তমান চেয়ারম্যান হাতে কলমে প্রশিক্ষণের বিষয়টি অধিকতর নিয়মতান্ত্রিক করার প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেন। যাতে করে সকল স্তরের অর্থাৎ ১,৫১০ জন নিবন্ধিত ও ৫,৮০০ জন অনিবন্ধিত ক্ষুদ্র চা চাষিদের দোরগোড়ায় প্রশিক্ষণ সেবা সারা বছর জুড়ে বিরাজমান থাকে। এ প্রেক্ষিতে গত ২০ অক্টোবর ২০২০ খ্রি. তারিখে বাংলাদেশ চা বোর্ডের চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল মোঃ জহিরুল ইসলাম এনডিসি, পিএসসি মহোদয় পঞ্চগড়ে সফরকালীন উত্তরবঙ্গের চা শিল্পের সাথে সম্পৃক্ত অংশীজনদের সাথে মতবিনিময় সভায় অংশগ্রহণসহ বটলিফ চা কারখানা ও ক্ষুদ্রায়তন চা বাগান সরেজমিনে পরিদর্শন করেন। পরিদর্শনকালীন ক্ষুদ্র চাষিদের সাথে আলোচনাকালে চাষিরা চা সম্পর্কিত বিভিন্ন প্রশ্ন ও অজানা বিষয় সম্পর্কে আলোচনার সূত্রপাত করেন। চা বোর্ডের চেয়ারম্যান কৃষকের চা সম্পর্কে এ ধরণের গুরুত্বপুর্ণ অজানা বিষয়গুলো নিয়মতান্ত্রিকভাবে স্কুলের মাধ্যমে সহজে শিক্ষা দেয়ার প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেন। তাঁরই চিন্তার ফসল “ক্যামেলিয়া খোলা আকাশ স্কুল”। এ প্রেক্ষিতে কৃষকের দোরগোড়ায় বর্ণিত সেবা পৌঁছে দেয়ার লক্ষ্যে “ক্যামেলিয়া খোলা আকাশ স্কুল” নামে একটি দেয়াল ও ছাদ বিহীন স্কুল চালুর উদ্যোগ নেয়া হয়। তাৎক্ষনিকভাবে বাংলাদেশ চা বোর্ড কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন “এক্সটেনশন অব স্মল হোল্ডিং টি কালটিভেশন ইন নর্দান বাংলাদেশ” প্রকল্পের পরিচালক ড. মোহাম্মদ শামীম আল মামুনকে ইউনিয়ন ভিত্তিক “ক্যামেলিয়া খোলা আকাশ স্কুল” বাস্তবায়নের নির্দেশনা প্রদান করেন। সেই থেকে কৃষকের দোরগোড়ায় সেবা পৌঁছে দিতে বিগত ২৫ অক্টোবর ২০২০ খ্রি. তারিখে পঞ্চগড় জেলার তেঁতুলিয়া উপজেলায় চালু হলো “ক্যামেলিয়া খোলা আকাশ স্কুল”। যা প্রতিমাসেই বিভিন্ন ইউনিয়ন পর্যায়ে চলমান থাকবে। উল্লেখ্য যে, “ক্যামেলিয়া খোলা আকাশ স্কুল” এর কার্যক্রম একই সাথে লালমনিরহাট, পার্বত্য চট্টগ্রামের বান্দরবানসহ বৃহত্তর ময়মনসিংহের শেরপুর ও জামালপুরে শুরু হয়েছে। ছাদ ও দেয়ালবিহীন এ স্কুলে উত্তরবঙ্গে ২৫টি প্রশিক্ষণ কর্মশালার আয়োজন করা হয়েছে। এতে প্রায় ১,৫০০ ক্ষুদ্র চা চাষি এ স্কুলের মাধ্যমে হাতে কলমে প্রশিক্ষণ নিয়েছে।